৫ হাজার বৃক্ষ চারা বিতরণ ও রোপনের মধ্য দিয়ে শেষ হলো ক্লিন সিরাজগঞ্জ গ্রীন সিরাজগঞ্জ এর মাসব্যাপী উৎসব

৫ হাজার বৃক্ষ চারা বিতরণ ও রোপনের মধ্য দিয়ে শেষ হলো ক্লিন সিরাজগঞ্জ গ্রীন সিরাজগঞ্জ এর মাসব্যাপী উৎসব

শফিক মোহাম্মদ রুমন (সিরাজগঞ্জ) :  ২০২১ “বাংলার আবহাওয়া, বাংলার মাটি গাছ লাগিয়ে করবো খাটি” এই স্লোগান কে সামনে রেখে, জলবায়ু পরিবর্তনে ইতিবাচক ভূমিকা রাখতে ৫ হাজারের বেশী বৃক্ষচারা রোপন ও বিতরণ করলো টিম ‘ক্লিন সিরাজগঞ্জ গ্রীন সিরাজগঞ্জ’। প্রতিবছর ০৫ ই জুন, বিশ্ব পরিবেশ দিবস থেকে এই কার্যক্রম শুরু হয়। এবছরও ঠিক একই দিন থেকে কার্যক্রম শুরু করেন তারা। ২০২১ সালে মোট ৪৭ দিনে তারা এই ৫ হাজার বৃক্ষ রোপন সম্পূর্ণ করেন। গত মাস থেকে চলতি মাসের ১০ তারিখ পর্যন্ত এই কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে। সিরাজগঞ্জ জেলার বিভিন্ন থানা, উপজেলা এমন কি ওয়ার্ড বা ইউনিয়ন পর্যায়ে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এবং ব্যক্তিক মাঝে এই বৃক্ষচারা পৌছে গেছে। সদরের প্রায় সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানেই এই বৃক্ষরোপণ ও বিতরণ কার্যক্রম পরিচালিত হয়। বিশেষ করে ভিক্টোরিয়া উচ্চ বিদ্যালয়, জ্ঞানদায়িনী উচ্চ বিদ্যালয়, বুদ্ধি প্রতিবন্ধী স্কুল, কাটাখালির পাড়, কল্যাণী প্রাথমিক বিদ্যালয়, রিভারভিউ আইডিয়াল ডিগ্রী কলেজ, স্বরস্বতি প্রাথমিক বিদ্যালয়, জানপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়, মিরপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়, মল্লিকা ছানাউল্লাহ আনসারি উচ্চ বিদ্যালয়, হোসেনপুর প্রাথমিক বিদ্যালয় উল্লেখযোগ্য। এছাড়াও বিভিন্ন মাদ্রাসার শিক্ষার্থীদের মাঝেও বৃক্ষচারা বিতরণ করা হয়। বিভিন্ন মসজিদ, মন্দির, শ্বসানের উন্মুক্ত স্থানে বৃক্ষরোপন করা হয়। ‌এই কর্মসূচীর বিভিন্ন দিনে সরকারের বিভিন্ন জনপ্রতিনিধি এবং প্রশাসনের উর্ধতন কর্মকর্তাগন উপস্থিত ছিলেন। মাসব্যাপী বৃক্ষরোপণ ও বিতরণ উৎসবের উদ্বোধন করেন সিরাজগঞ্জ সদর ২ আসনের মাননীয় সাংসদ – অধ্যাপক ডাঃ মোঃ হাবিব মিল্লাত এমপি, তারপর পর্যায়ক্রমে অতিথি হয়ে কর্মসূচী গুলোতে ছিলেন সিরাজগঞ্জ পৌরসভার  মেয়র  আব্দুর রউফ মুক্তা, জেলা প্রশাসক –  ড. ফারুক আহাম্মদ, এডিসি জেনারেল – মনির হোসেন, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান –  নাসিম রেজা নূর দিপু, প্রেসক্লাবের  সভাপতি / সম্পাদক, বীর মুক্তিযোদ্ধা বৃন্দ, মুক্তিযোদ্ধা সন্তান বৃন্দ সহ একাধিক উল্লেখযোগ্য ব্যক্তিবর্গ। ‌পুরো উৎসব জুড়ে ফলজ, বনজ, ভেষজ এবং ঔষধী বৃক্ষচারা বিতরণ ও রোপন করা হয়েছে। ক্লিন সিরাজগঞ্জ গ্রীন সিরাজগঞ্জ এর প্রতিষ্ঠাতা –  আশিক আহমেদ জানান, ফলজ গাছ বিতরণের উদ্দেশ্য ছিল এই যে, যেন মানুষের পাশাপাশি পশু পাখি এই ফলমূল খেয়ে তাদের বিস্তার ঘটাতে পারে।আমাদের দেশে পাখি বিস্তার কমে যাচ্ছে, পাখি বিস্তার যেন বৃদ্ধি পায় সেই আলোকে ফলজ বৃক্ষচারা বিতরণ করেছি। আবার ঔষধী এবং ভেষজ বৃক্ষচারার মধ্যে উল্লেখযোগ্য – বহেরা, হরতকি, আমলকি,বাবলা, অর্জুন, নিম ইত্যাদি। আমাদের বর্তমান শিক্ষার্থীরা এই গাছ গুলোর নাম শুনলেও চোখে দেখেছে খুব কম, এছাড়াও এই গাছ গুলো অনেকাংশেই বিলুপ্ত হয়ে যাচ্ছে। এই বৃক্ষচারা গুলো বিতরণের উদ্দেশ্য ছিল যেন আমাদের বর্তমান শিক্ষার্থীরা এই বৃক্ষচারা গুলো বাস্তবে দেখে এবং কার্যকারীতা সম্পর্কে জানতে পারে। বনজ গাছ দিয়েছি যেন আমাদের বনজ সম্পদ বৃদ্ধি পায়। এমন মহতী উদ্যোগ এবং ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা নিয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন- আমরা আগামী ১০ বছরে ৫ লক্ষ বৃক্ষ রোপন করতে চাই। পাশাপাশি আমাদের সংগঠন থেকে ইতিপূর্বেও যে ধরনের সমাজসেবা মুলক এবং মানবিক কাজ করেছি তা ভবিষ্যতেউ অব্যাহত থাকবে এবং আমাদের দেশের আর্থ সামাজিক উন্নয়নে আমরা আরো নতুন নতুন অনেক পরিকল্পনা হাতে নেবো। ‘ক্লিন সিরাজগঞ্জ গ্রীন সিরাজগঞ্জ’ মুলত পরিবেশবাদী স্বেচ্ছাসেবী সামাজিক সংগঠন হলেও, দীর্ঘদিন ধরে এই সংগঠন বিভিন্ন সময় বিভিন্ন মানুষ এবং সমাজের বিভিন্ন স্থানে মানবিকতা নিয়ে কাজ করে আসছে। করোনার শুরু থেকে তারা জন সাধারণ কে সচেতন করতে দিন রাত মাঠে থেকে কাজ করেছে। প্রায় ১০ হাজার অসহায় পরিবার কে খাদ্যসহায়তা দিয়েছে। লকডাউনে রেস্তোরা বন্ধ থাকায় পথে থাকা অভুক্ত প্রায় ১৭ হাজার কুকুর কে খাবার দিয়েছে। বাস্তুহারা মানুষদের খাবার দেয় এরা। রোযাদারদের পুরো রমযানে ইফতার দেয় এরা। পূজা পার্বনে অসহায় হিন্দুদের সহায়তা থেকে শুরু করে মসজিদ, মাদ্রাসা, এতিমখানায় এরা সহযোগিতা করে। শীতের মাঝে শীতবস্ত্র দেয় আবার বন্যার মধ্যে ত্রাণ, আশ্রয়হীন কে ঘর, পথশিশুদের পোষাক এমন অসংখ্য সামাজিক এবং মানবিক কাজে নিজেদের ব্যস্ত রাখে এই সংগঠনের সকল সদস্যবৃন্দ। সংগঠনটির প্রতিষ্ঠাতা আশিক আহমেদ আরো বলেন – আমার রয়েছে একঝাক তরুণ স্বেচ্ছাসেবক, যারা নিরলস ভাবে নিজেদের বিলিয়ে দিয়েছে দেশ’মায়ের সেবায়। আমাদের প্রায় ১০০ এর বেশী সক্রিয় স্বেচ্ছাসেবক রয়েছে কিন্তু এদের মধ্যে যাদের নাম না বললেই নয় – দিবস, সুহাস, শুভ, শাওন, আব্দুল্লাহ, গিনি, রিমন, কুদরত, আরমান, ওমর, তুহিন সহ আরো অনেকেই। এবং আমি বিশ্বাস করি এই তরুণেরা যে স্বপ্ন নিয়ে কাজ করে যাচ্ছে তা একদিন সফল হবেই, আমাদের বাংলাদেশ একদিন মানবিক বাংলাদেশ হবেই হবে।

Share This Post