হ্যাপি নিউ ইয়ার

হ্যাপি নিউ ইয়ার

অন্য দিনের সঙ্গে আজকের খুব একটা পার্থক্য নেই। আজও সূর্য উঠবে। শীতের হিমেল হাওয়ায় উষ্ণতা বুলিয়ে, কুয়াশা সরিয়ে দিয়ে আলো ছড়িয়ে পড়বে দিগন্তে। কিন্তু অন্য কোনো দিনের তুলনায় আজকের এই দিনের আলো যেন মনেপ্রাণে আশা জাগাবে। নতুন স্বপ্ন দেখার। বাঁধা ডিঙিয়ে শুভ, সুন্দর জীবনের কথা বলবে। বছরের প্রথম আলোয় মানুষ খুঁজে নেবে আশা জাগানিয়া কিরণ।
আজ ২০২২ সালের প্রথম দিন। সবাইকে নতুন বছরের শুভেচ্ছা। সারা বিশ্বের কোটি কোটি মানুষের মতো আমরাও আমাদের অগণিত পাঠকদের জানাই ‘হ্যাপি নিউ ইয়ার’। নতুন বছরটি সবার জীবন থেকে কষ্ট দূর করে দিয়ে আনন্দে, শান্তিতে ভরিয়ে দিন এই প্রত্যাশা। 

নতুন বছর সবার মাঝে জাগিয়ে তোলে আশা, সম্ভাবনা। বিগত বছরের সুখ-দুঃখ, আনন্দ-বেদনা পেছনে ফেলে নতুন বছরে অমিত সম্ভাবনার পথে এগিয়ে যাওয়ার স্বপন দেখায়। স্বভাবতই নতুন বছর নিয়ে এবারও মানুষের প্রত্যাশা একটি করোনা মুক্ত বিশ্ব। তবে, বাংলাদেশের জন্য করোনার টিকা দেয়াসহ অর্থনীতি ও সামাজিক ক্ষেত্রে স্বাভাবিক পরিস্থিতি ফিরিয়ে আনা, শোষণ-দারিদ্রমুক্ত শোষণহীন রাষ্ট্রগঠণ, মানবসম্পদ তৈরির ধারাবাহিকতা বজায় রাখা হচ্ছে মূল চ্যালেঞ্জ। এই চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করে দেশ আবার স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসবে, এটাই নতুন ইংরেজি বছরে সবার প্রত্যাশা।
আজ নতুন বছরের প্রথম দিনটিতে দুঃখ, কষ্ট সবকিছু কাটিয়ে নতুন জীবনের দিকে যাত্রার প্রেরণা নেবে মানুষ। নতুন বছরটি যেন সমাজ জীবন থেকে, প্রতিটি মানুষের মন থেকে সকল গ্লানি, অনিশ্চয়তা, হিংসা, লোভ ও পাপ দূর করে। রাজনৈতিক হানাহানি থেমে গিয়ে গিয়ে আমাদের প্রিয় স্বদেশ যেন সমৃদ্ধির দিকে এগিয়ে যেতে পারে।

দেশবাসীক নতুন বছর ২০২২ উপলক্ষে শুভেচ্ছা জানিয়ে বাণী দিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদ আব্দুল হামিদ, প্রধানমমন্ত্রী শেখ হাসিনা।গত বছরের প্রত্যাশা আর প্রাপ্তির হিসাব খুঁজতে খুঁজতে নতুন বছরকে সামনে রেখে আবর্তিত হবে নতুন নতুন স্বপ্নের। বাংলাদেশে ইংরেজি নববর্ষ পালনের ধরণ বাংলা নববর্ষ পালনের মত ব্যাপক না হলেও এ উৎসবের আন্তর্জাতিকতার ছোঁয়া থেকে বাংলাদেশের মানুষও বিচ্ছিন্ন নয়। করোনা মহামারী মানুষের জীবন, অর্থনীতি, দেশ, কাল সবকিছুকে ওলটপালট করে দিয়েছে। মানুষের মৃত্যু, রোগে, শোকে ভারি হয়ে উঠেছে পৃথিবীর বাতাস। এই শতাব্দী এক ভয়ংকর পরিস্থিতি অতিক্রম করছে। যার কারণে জীবন যেন এক করোনাকালে থমকে রয়েছে। এত মৃত্যু, এত বাধা এর পরেও জীবন থেমে থাকে না। বাধা পেরিয়ে আলোকিত জীবনের দিকে এগিয়ে চলাই মানুষের স্বাভাবিক গতি। নতুন বছরের শুরুতে করোনা কাল কাটিয়ে মানুষের যাত্রা সুন্দরের দিকে পরিচালিত হবে এই প্রত্যাশাই করছেন এখন সারাবিশ্বের মানুষ।
২০২১ ছিল বিষাদের বছর। কোভিড-১৯-এর আগের বিশ্ব আর পরের বিশ্বের মধ্যে মিল কোন দিনই হবে না। ২০২০ সালের মত ২০২১ সালটিও ছিল স্বজন হারানোর বছর। পুরো পৃথিবীকে ওলটপালট করে দেওয়ার বছর। রহস্যময় কোভিড ১৯ পুরো পৃথিবীকে একে অপরের কাছ থেকে বিচ্ছিন্ন করে ফেলেছে। প্রতিটি মানুষ বিচ্ছিন্ন দ্বীপের মতো জেগে থেকে বাঁচার আকুতি নিয়ে কাটিয়েছে পুরো বছর। ব্যবসা-বাণিজ্য, চাকরি, মানুষের জীবন অনিশ্চয়তায় ঘিরে ফেলেছে এই মহামারী কাল। করোনা সংক্রমণের আতংক, মৃত্যু, লাখো মানুষের রোগভোগ ও অনিশ্চয়তা, লকডাউনের কড়া বিধি-নিষেধ আর সেই মহামারীর ধ্বংসস্তূপের মধ্য থেকে আবার জীবনের জেগে ওঠার লড়াইয়ের বছর ছিল ২০২১। সেই বদ্ধ জীবন থেকে পুনরায় স্বাভাবিক পৃথিবীর ফিরে আসার প্রত্যাশা নিয়ে শুরু হলো ২০২২।
করোনার টিকা পাওয়ায় মানুষের জীবন নতুন বাস্তবতায় স্বাভাবিক হতে শুরু করেছে। গতি এসেছে ব্যবসায়। তাই, আশার আলো জ্বালিয়ে শুরু হয়েছে ২০২২।মহাকালে মিলিয়ে গেল আরো একটি খ্রিস্টিয় বছর। সেইন্ট গ্রেগরি প্রবর্তিত ক্যালেন্ডারের হিসাবে ২০২১ সাল শেষ হয়ে গত রাত বারোটার পর শুরু হয়েছে ২০২২ সাল। সারাবিশ্বের মানুষ করোনাকালীন নিয়ন্ত্রনের মধ্যেও মানুষ পরিবার পরিজন নিয়ে বিদায় জানিয়েছে পুরানো বছরকে। আনন্দ-উল্লাস করে পালন করছে এই নতুন বছরের শুরুর ক্ষণটিকে। বাংলাদেশেও নিরাপত্তাজনিত নিষেধাজ্ঞা ও করোনাকালীন স্বাস্থ্যবিধি মানার কড়াকড়ির মাঝেও ২০২২ সালকে স্বাগত জানিয়েছে বাংলাদেশের তরুণ-তরুণী, শিশু-কিশোর থেকে শুরু করে সব বয়সের মানুষ। দেশ—বিদেশে অবস্থানরত বন্ধু—বান্ধব ও প্রিয়জনদের আগামী বছরের মঙ্গল কামনা করে শুভেচ্ছা বার্তা পাঠানো শুরু হয়ে গেছে ফেসবুক, টুইটার ও মোবাইলের এসএমএস’এর মাধ্যমে। নববর্ষকে ঘিরে বিক্রির জন্য রং বেরং-এর নতুন ক্যালেন্ডার ও ডায়েরিতে ছেয়ে গেছে বিভিন্ন বিপণি বিতানের প্রাঙ্গণ। প্রিয়জনকে নববর্ষের শুভেচ্ছা জানাতে কার্ডের শো—রুমগুলোতে ক্রেতাদের ভিড় দেখা গেছে।
এদিকে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মত নতুন বছরকে বরণ করতে বাংলাদেশেও এবার নানা আঙ্গিকের অনুষ্ঠানের আয়োজন ছিল। আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি বিবেচনা ও ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের বিধি নিষেধ মাথায় রেখেই এবার ইংরেজি নববর্ষ উদযাপনে মেতেছিল দেশবাসী।

Share This Post