সাত কলেজ শিক্ষার্থীদের ফের আন্দোলন

সাত কলেজ শিক্ষার্থীদের ফের আন্দোলন

মো: ফেরদৌস রহমান : 

ঢাবির বিমুখতা আর সাত কলেজ প্রশাসনের দায়িত্বহীনতায় চরম বিপর্যয়ের মুখে সাত কলেজের সাধারণ শিক্ষার্থীরা। একের পর এক সমস্যা যেন পিছু হটছে না। সাম্প্রতিক রহস্যময় ফলাফল প্রকাশে পাশের হারের চেয়ে ফেলের হার অধিক বেশি। ফলাফল বিপর্যয়ে এতটা বাজে অবস্থা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাসে এর আগে ঘটেছে কিনা তা বিরল। আসলে সাত কলেজ নিয়ে এতো রহস্যময় কেন। সাত কলেজ নিয়ে নানা তালবাহানার শেষ কোথায়? নাকি সাত কলেজের পড়ুয়া শিক্ষার্থীদের মেধার অপব্যবহার করছে সংশ্লিষ্টরা। এমন হাজারো প্রশ্নের সম্মুখীন সাত কলেজ শিক্ষার্থীদের মনে। 
রোববার ( ২৯ আগস্ট)  সকাল ১০ টা থেকে নীলক্ষেত মোড়ে অবস্থান করেন সাত কলেজের শ’কয়েক শিক্ষার্থী।
আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা জানান, অনার্স ২০১৫-১৬ সেশন ফলাফল বিপর্যয়, ২০১৬-১৭ সেশনের ফলাফল এবং মাস্টার্স ২০১৬-১৭ সেশনের ফলাফল বৈষম্যের প্রতিবাদ এবং খাতা পুনর্মূল্যায়নসহ পাঁচ দফা দাবি নিয়ে তারা আন্দোলন করছেন।
শিক্ষার্থীদের দাবির মধ্যে রয়েছে, ৮০ শতাংশ অকৃতকার্য শিক্ষার্থীর খাতা সঠিক মূল্যায়ন করতে হবে। অকৃতকার্য শিক্ষার্থীদের জন্য ১০ দিনের মধ্যে বিশেষ পরীক্ষার নোটিশ প্রদান করতে হবে। সকল বিভাগের ফলাফল ৯০ দিনের ভেতর প্রকাশ করতে হবে। আটকে থাকা বিষয়গুলোর ফলাফল আগামী ৭ দিনের ভেতর প্রকাশ করতে হবে। সকল ডিপার্টমেন্টের ফলাফল দ্রুততম সময়ে সমন্বয় করতে হবে। আন্দোলনের সময় রাস্তায় পুলিশের অবস্থান দেখা যায়। 
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত হওয়ার পর থেকে রাজধানীর সরকারি সাতটি কলেজ নানান শিক্ষা বৈষম্যের শিকার হয়ে আসছে। আদতে সাত কলেজ কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ের নিময়ে চলছে কিনা তা নিয়েও সন্দেহ। এখানে পড়ুয়া হাজার হাজর শিক্ষার্থীর জীবন নিয়ে খেলছে সংশ্লিষ্টরা। এভাবে চলতে থাকলে সাত কলেজের সুনাম ধূলিসাৎ হয়ে যাবে। 
তাই অনতিবিলম্বে সাত কলেজের সকল প্রকার বৈষম্য নিরসন করে বিশ্ববিদ্যালয়ের ন্যায় পরীক্ষা, পরীক্ষার মান বণ্টন, খাতা মূল্যায়ন সহ সকল সুযোগ সুবিধা নিশ্চিত করতে হবে।

Share This Post