সাতক্ষীরা সরকারি কলেজে তিনটি বিশাল আকৃতির কৃষ্ণচুড়া গাছ রাতের আধারে কেটে নেওয়ার অভিযোগ কতৃপক্ষের বিরুদ্ধে

সাতক্ষীরা সরকারি কলেজে তিনটি বিশাল আকৃতির কৃষ্ণচুড়া গাছ রাতের আধারে কেটে নেওয়ার অভিযোগ কতৃপক্ষের বিরুদ্ধে

ফারুক রহমান (সাতক্ষীরা) :
সাতক্ষীরা সরকারি কলেজের বিশাল আকৃতির তিনটি কৃষ্ণচুড়া গাছ রাতের আঁধারে কেটে গায়েব করে দিয়েছে কলেজ কতৃপক্ষ। টেন্ডার নোটিশ ও বিজ্ঞাপন ছাড়াই রাতের আধারে গাছ কাটা নিয়ে এলাকায় ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। কলেজ কতৃপক্ষের দাবি- শিক্ষার্থীদের নিরপত্তা হুমকির মুখে পড়ায় গাছগুলো কেটে ফেলা হয়েছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কলেজ এলাকার একাধিক ব্যক্তি জানান, সরকারি কলেজটি সাতক্ষীরার ঐতিহ্যবাহি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। এর আগে ভবন নির্মাণের অজুহাতে দুটি বড় বড় মেহগনি গাছ কেটে গায়েব করে দেওয়া হয়। শনিবার রাতে একইভাবে বিশাল আকৃতির তিনটি কৃষ্ণচুড়া গাছ কেটে গায়েব করায় সময় এলাকাবাসি সাংবাদিকদের খবর দিলে ছবি তোলার সময় সাতক্ষীরা সরকারি কলেজের ভাইস প্রিন্সিপাল আমানুল্লাহ হাদী ঘটনাস্থল থেকে গা ঢাকা দেন।

স্থানীয়রা জানান, কলেজের ভাইস প্রিন্সিপাল অবৈধভাবে আগের দুটি মেহগনি গাছ ও শনিবার রাতে তিনটি দামী কৃষ্ণচুড়া গাছ কেটে গায়েব করে দেন। কলেজের গাছ কাটা, জমি লিজ দেওয়া, ভবন নির্মাণ সব কাজ টেন্ডার ছাড়াই ভাইস প্রিন্সিপাল বাস্তবায়ন করে আসছেন অদৃৃশ্য শক্তির জোরে।

সাতক্ষীরা সরকারি কলেজের ভাইস প্রিন্সিপাল আমানুল্লাল হাদীর সাথে এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমি গাছ কাটতে যাব কেন? কলেজের প্রিন্সিপালের অনুমতি নিয়ে গাছগুলো কাটা হয়েছে। তাছাড়া ঝড়ে গাছগুলো হেলে পড়ায় শিক্ষার্থীদের নিরপত্তার কথা ভেবে গাছগুলো কাটা হয়েছে। কোন টেন্ডার ও নোটিশ ছাড়া গাছগুলো কিভাবে কাটলেন এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি কোনো উত্তর দেননি।

সাতক্ষীরা সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ আফজাল হোসেনের সাথে একাধিকবার মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

Share This Post