শ্রীপুরে ফেইসবুক গ্রুপের মাধ্যমে মুমূর্ষু রোগীকে সেচ্ছায় রক্ত দেয়ার উদ্যোগ

শ্রীপুরে ফেইসবুক গ্রুপের মাধ্যমে মুমূর্ষু রোগীকে সেচ্ছায় রক্ত দেয়ার উদ্যোগ

শ্রীপুরে ফেইসবুক গ্রুপের মাধ্যমে মুমূর্ষু রোগীকে সেচ্ছায় রক্ত দেয়ার উদ্যোগ নিয়েছে “শ্রীপুর সেচ্ছাসেবী রক্তদান পরিবার”নামে একটি ফেইসবুক গ্রুপ সংগঠন। রক্তের জন্য যোগাযোগ করা মাত্র রোগীকে রক্ত দেয়ার ব্যবস্থা করা হবে বলে জানিয়েছেন সংগঠনটির কয়েকজন সদস্য। এজন্য সদস্যরা একটি ফেইসবুক গ্রুপ ও ফেইসবুক মেসেঞ্জার গ্রুপ পরিচালনা করছেন। রোগী যাতে দ্রুত রক্ত পেতে পারেন সেজন্য কয়েকজন সেচ্ছাসেবী এডমিন মোডারেট হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন। এমন মানবিক উদ্যোগ নিয়েছে  গাজীপুর জেলার প্রায় ২শত সেচ্ছাসেবী সদস্যরা।
এর মধ্যে গাজীপুট জেলার কয়েকটি হাসপাতালে গিয়ে সেচ্ছায় রক্তদান করে এসেছে বলে জানিয়েছেন- সদস্যেরা। তাদের মধ্যে যারা রক্ত দিতে সমর্থবান এবং ইচ্ছুক তাদের তালিকা করা হয়েছে। মুমূর্ষু রোগীকে রক্ত দিয়ে তারা সাহায্য করছেন।সেচ্ছাসেবী সদস্যের মধ্যে কেউ ছাত্র কেউ ব্যাবসায়ী আবার কেউ চাকুরীজীবী। তাই ফেইসবুকের মাধ্যমে সহজেই সবার সাথে সবাই যোগাযোগ রেখে রক্তদানে একে অপরকে উৎসাহ সহ রক্তের প্রয়োজনে ডোনার খুজে পাওয়া সহজ হচ্ছে বলে জানিয়েছেন সদস্যরা।এ ব্যতিক্রমী উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন বিভিন্ন পর্যায়ের ব্যক্তিরা।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে ‘শ্রীপুর সেচ্ছাসেবী রক্তদান পরিবার’র প্রতিষ্ঠাতা আশিকুর রহমান সবুজ বলেন,সেচ্ছায় ‘মুমূর্ষু রোগীদের রক্ত’ দিয়ে সহায়তা করার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে গত ১ নভেম্বর ২০২১ইং। এরই মধ্যে জেলার অনেক মানুষ রক্তের জন্য আমাদের সাথে যোগাযোগ করেছেন আমরাও তাদের রক্ত দিয়ে সহায়তা করেছি।আমরা আমাদের গ্রুপে ইতিমধ্যে ২৫০+ সেচ্ছাসেবী সদস্য পেয়েছি ইনশাআল্লাহ আমাদের গ্রুপে প্রতিদিনই সদস্য যোগ হতে থাকবে।এতে করে যে যার জায়গায় থেকে একে অপরকে সহযোগীতা করতে পারবে। তিনি বলেন, সক্ষমতা অনুযায়ী এবং যাদের রক্ত কেনার সামর্থ্য নেই- এমন রোগীকে প্রাধান্য দিয়ে রক্ত দেয়া হচ্ছে।ইতিমধ্যে “শ্রীপুর সেচ্ছাসেবী রক্তদান পরিবার” উপজেলার পাড়া মহল্লায় ফ্রিতে রক্তের গ্রুপ নির্ণয় ও রক্তদানে উৎসাহ দিতে কার্যক্রম শুরু করবে বলে জানিয়েছেন। 
প্রতিটা এলাকাতে এমন উদ্যোগ নিলে কেমন হবে  জানতে চাইলে আশিকুর রহমান সবুজ বলেন, আমরা উপজেলা +জেলা ভিত্তিক উদ্যোগ নিয়েছি। এমন ভাবে প্রতিটা উপজেলাতে এমন উদ্যোগ নিলে অবশ্যই ভালো হবে। এক উপজেলাতে রক্তের প্রয়োজন হলে অন্য উপজেলাতে খুঁজে সময় নষ্ট করতে হবেনা।তিনি আরো বলেন, রক্ত দেয়ার বিষয়টি মানুষ মনে রাখে। এতে একজনের সাথে আরেকজনের সম্পর্ক আরও দৃঢ় হবে। মানুষের ভোগান্তি লাঘব হবে, একজন আরেকজনকে রক্ত দিয়ে সহায়তা করার মতো কর্মসূচি নিলে সবাই উপকৃত হবে।
সবশেষে শ্রীপুরের সবাইকে রক্তদানের মনমানসিকতা নিয়ে “শ্রীপুর সেচ্ছাসেবী রক্তদান পরিবার’র সদস্য হয়ে সহযোগীতা করার আহ্বান জানান তিনি।

Share This Post