রক্ত যখন ধর্ম মেলায়

রক্ত যখন ধর্ম মেলায়

একজন হিন্দু পরিবারের মেয়ে নাম ‘সাউনি রানী’। তিনি দীর্ঘদিন ধরে মিসক্যারেজ রোগে আক্রান্ত হয়ে প্রচুর ব্রিডিং হওয়ায় তার শরীরে প্রায় ৪ ব্যাগ ব্লাড লাগবে বলে জানিয়েছেন ডাক্তার। জীবন বাঁচাতে দূর গ্রাম থেকে ‘সাউনি রানী’ কে নিয়ে আসা হয় ঠাকুরগাঁও শহরে।সাউনি রানীকে ভর্তি করানো হয় একটি বেসরকারি ক্লিনিকে। অচেনা শহর, অচেনা জায়গা, অচেনা মানুষ, কোথায় থেকে মিলবে ৪ ব্যাগ রক্ত।এমন সময়ে পাশে দাঁড়িয়েছে “(TKG)স্বাধীন বাংলা সেচ্ছাসেবী সংস্থা” নামে একটি মানবিক সংগঠন। সব সময় অসহায় মানুষের পাশে নিয়োজিত রয়েছেন তারা। এবং যাদের রক্ত প্রয়োজন তাদের রক্ত দেওয়ার যাবতীয় কাজ তারাই নিজ দায়িত্ব পালন করে, মানুষের সেবা করাই তাদের মূল লক্ষ্যে।

জাতপাত ধর্ম নির্বিশেষে আমরা সকলেই মানুষ,এটাই সবচেয়ে বড় পরিচয়।তাই তো হিন্দু ধর্মাবলি একটি বোনের জীবন বাচাতে এগিয়ে আসলো ইসলাম ধর্মের একটি ভাই। তার শরীরের লাল ভালোবাসা দিয়ে বোনের জীবন বাঁচিয়ে প্রমান করে দিয়েছেন যে আমরা সবাই মানুষ। ইসলাম ভালো বাসতে শিখায়। প্রতিটি মানুষ জাতিকে। যিনি রক্ত দান করেছেন তার নাম মোঃশাহীন,তিনি বলেন এমন একটি সংস্থা সমাজে খুবই প্রয়োজন, অসহায় দুস্থদের মাঝে দাঁড়ানোর প্রবণনতাটা সব সময় তাদের মাঝেই থাকুক,এটাই প্রত্যাশা করি। এই সংস্থাটির মাধ্যমে আমার একটি বোনকে আজ রক্ত দিতে পেরেছি।আমি খুবোই খুশি হয়েছি। সংগঠনটির জীবন তৈরি হওয়ার ১ মাস ২১ দিন। এতো অল্প সময়ে প্রায় ৪৫ জনকে ব্লাড ডোনেট করেছেন এই সংস্থাটি।

তারা আগামী তে কেমন কাজ করবে সেই কথা জানতে চাইলে স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার দায়িত্বরত কর্মীরা জানান: মুসলিম রক্ত হিন্দুর শরীরে’ । আহ রক্তের কোন ধর্ম নেই । বেঁচে যাক বোনটির প্রাণ , এই কামনাই আমাদের সংগঠনের প্রত্যাশিত কামনাকরি। ধন্যবাদ ও ভালোবাসা ‘TKG স্বাধীন বাংলা সেচ্ছাসেবী সংস্থার সকল কর্মীদের।আমরা সবাই আছি, থাকবো গরিব অসহায় দুস্থ মানুষের মাঝে তাদের বিপদে-আপদে সবসময় পাশে আছি আমরা। (TKG)স্বাধীন বাংলা স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার কার্যক্রম এভাবেই চলবে আমাদের কাজ ইনশাআল্লাহ।করোনা মোকাবেলায়, স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলি, মাক্স পরিধান করি,সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখি, নিজে সচেতন হই, অন্যকে সচেতন করি,জয় হবোই ইনশাআল্লাহ।

(স্বাধীন বাংলা সেচ্ছাসেবী সংস্থার স্বেচ্ছাসেবক কবির আল মুমিন এর টাইমলাইন থেকে নেয়া)

Share This Post