মৌলভীবাজারে গারোদের ঐতিহ্যবাহী ‘ওয়ানগালা’ উৎসব উদযাপন

মৌলভীবাজারে গারোদের ঐতিহ্যবাহী ‘ওয়ানগালা’ উৎসব উদযাপন

এস কে দাশ সুমন (শ্রীমঙ্গল) :  মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে গারোদের ঐতিহ্যবাহী ‘ওয়ানগালা’ উৎসব অনুষ্ঠিত হয়েছে। রোববার ১৪ নভেম্বর দুপুরে শ্রীমঙ্গল উপজেলার ফুলছড়া চা বাগানে শ্রীচুক আচিক আসং নকমা এসোসিয়েশন ও শ্রীচুক গারো যুব সংগঠনের আয়োজনে এই উৎসব অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে এতিহ্যবাহী সা-সাৎ-সাওয়া ধুপারিতের মধ্য দিয়ে অতিথিদের স্বাগত জানানো হয়। ওয়ানগালা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মৌলভীবাজার জেলা প্রশাসক মীর নাহিদ আহসান। অনুষ্ঠান সভাপতিত্ব করেন সিলেট ধর্মপ্রদেশের প্রধান পরম শ্রদ্ধেয় বিশপ শরৎ ফ্রান্সিস গমেজ।
বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. নজরুল ইসলাম, সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. নেছার উদ্দিন, শ্রীমঙ্গল থানা অফিসার ইনচার্জ শামীম অর রশীদ তালুকদার, উপজেলা পরিষদ নারী ভাইস চেয়ারম্যান মিতালী দত্ত, কালাপুর ইউপি চেয়ারম্যান মুজবিুর রহমান মুজুল, শ্রীমঙ্গল ক্যাথলিক মিশনের প্রধান পুরোহিত নিকোলাস বাড়ৈ, শ্রীমঙ্গল নটরডেম স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ ফাদার প্লাসিড প্রশান্ত রোজারিও প্রমূখ।
জানা যায়, কার্তিক মাসের শেষের দিকে নতুন ফসল ঘরে তুলতে নানা উৎসবের মাধ্যমে দেবতা মিসি সালজংকে উৎসর্গ করে পালিত হয় গারো সম্প্রদায়ের ‘ওয়ানগালা’ উৎসব বা গারো নবান্ন উৎসব। আসছে বছরে যেন ফসল ভালো হয়, সন্তান ও পরিজনরা যেন যেন ভালো থাকে আর দেশের যেন মঙ্গল হয়, এই কামনা করা হয়।
অনুষ্ঠানের প্রধান পরোহিত জংসন মৃ- প্রথা অনুসারে একটি মোরগ জবাই করে তার ভেতর থেকে ভুরি বের করেন। এরপর মন্ত্র পড়ে ভবিষ্যত গণনা করে জানান, ‘আগামী বছর ফসল দ্বিগুন হবে। আসছে দিনগুলো সবার জন্য শুভ হয়ে দেখা দেবে। দাম্পত্য জীবন সুখের হবে’। তিনি জানান, আগের দিনে গারো পাহাড়ি এলাকায় জুম চাষ হতো এবং বছরে মাত্র একটি ফসল হতো। তখন ওই জুম বা ধান ঘরে ওঠানোর সময় গারোদের শস্যদেবতা ‘মিসি সালজং’কে উৎসর্গ করে এ উৎসবের আয়োজন করা হতো। 
পুরোহিত বলেন, গারোরা প্রকৃতিপূজারী। কালের পরিক্রমায় গারোরা ধীরে ধীরে খ্রিস্টান ধর্মে দীক্ষিত হওয়ার পর তাদেও ঐতিহ্যবাহী সামাজিক প্রথাটি এখন ধর্মীয় ও সামাজিকভাবে একত্রে করে পালন করা হয়। একসময় তারা শস্যদেবতা মিসি সালজংকে উৎসর্গ করে ওয়ানগালা পালন করলেও এখন অনেকে নতুন ফসল কেটে যিশুখ্রিস্ট বা ঈশ্বরকে উৎসর্গ করে ওয়ানগালা পালন করে থাকেন।

Share This Post