মাধবপুরে প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর পেয়ে দারুণ খুশি প্রতিবন্ধী নজরুল দম্পতি

মাধবপুরে প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর পেয়ে দারুণ খুশি প্রতিবন্ধী নজরুল দম্পতি

 রিংকু দেবনাথ (মাধবপুর  ,হবিগঞ্জ ) :“আমার দেশে প্রতি মানুষ খাদ্য পাবে, আশ্রয় পাবে,শিক্ষা পাবে, উন্নত জীবনের অধিকারী হবে এই হচ্ছে আমার জীবনের স্বপ্ন”। বঙ্গবন্ধুর কথা যেন প্রতিবন্ধী প্রতিবন্ধী নজরুল দম্পতির জন্য বাস্তবে পরিনত হতে চলেছে”। হবিগঞ্জ মাধবপুর উপজেলার শাহজাহানপুর ইউনিয়নের সুরমা চা বাগান ৮ নং এলাকার শাররীক প্রতিবন্ধী নজরুল ইসলাম ভাঙ্গা হুইল চেয়ারে বসে মানুষের কাছ থেকে সাহায্য সহযোগীতা নিয়ে জীবিকা নির্বাহ করে। পা দুটি অচল। এর আগে হামাগুড়ি দিয়ে চলত। চা শ্রমিকের জীবনমান উন্নয়নে টেকসই আবাসন নির্মানের আওতায় সমাজকল্যান মন্ত্রাণালয়ের অর্থায়নে গত ৫ মাস আগে প্রতিবন্ধী নজরুলকে একটি ঘর তৈরি করে দিয়েছে সরকার। নজরুলের বিয়ে করার কোন সম্ভাবনা ছিল না। কিন্তু নজরুল নতুন ঘর পাওয়ার পরই বিয়ের প্রস্তাব আসে। উপজেলার হরষপুর সওদাগর পাড়ার মৃত লবি মিয়ার শাররীক প্রতিবন্ধী সালমার সাথে ৩ মাস পূর্বে বিয়ে হয়। প্রতিবন্ধী নজরুল বলেন, আগে সে রাস্তা ঘাটে পড়ে থাকত। এখন সরকারী ঘরে স্ত্রী ও মাকে নিয়ে বসবাস করছে। নববধু সালমা বলেন, ৩ ভাই ৪ বোন মা সহ পিতৃহারা পরিবারে তাদের ৮ জনের সংসার ছিল। পরিবারের কাছে সে ছিল বোঝা স্বরুপ। এখন নজরুলের সাথে বিয়ে হওয়ার পর তারা এখন নতুন স্বপ্ন দেখতে শুরু করেছে। ইউপি সদস্য মোঃ এনাম মিয়া বলেন, আগে নজরুলের খুবই করুন অবস্থা ছিল। এখন প্রতিবন্ধী দম্পতি সরকারী ঘরে সুখে তাদের জীবন কাটছে। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান বাবুল হোসেন খান বলেন, বাংলাদেশে একজন মানুষও গৃহহীন থাকবে না। এটি হচ্ছে প্রধানমন্ত্রীর অঙ্গীকার। প্রতিবন্ধী নজরুল দম্পতি এই অঙ্গীকারের সফল বাস্তবায়ন। উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা বলেন, অত্যন্ত গুরুত্বসহকারে চা বাগানে প্রতিবন্ধী নজরুল দম্পতির ঘর তৈরি করা হয়েছে। এখন তারা সুখে শান্তিতে বসবাস করে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ মঈনুল ইসলাম বলেন, নজরুল দম্পতি সমাজের সুবিধা বঞ্চিত মানুষ। সরকার এই সব মানুষকে গৃহ তৈরি করে দিয়ে উন্নয়নের মূল স্রোতে ফিরিয়ে আনছে।

Share This Post