ভালুকায় এক নিরাপত্তারক্ষীর হাতে আরেক নিরাপত্তারক্ষী খুন, আটক ১

ভালুকায় এক নিরাপত্তারক্ষীর হাতে আরেক নিরাপত্তারক্ষী খুন, আটক ১



আদ্রিয়া রুম্পা (ভালুকা, ময়মনসিংহ) :  ময়মনসিংহের ভালুকার পাড়াগাঁওয়ের রানার মটরস লিমিটেডে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে মাসুদ (৩৫) নামের ১ নিরাপত্তা রক্ষীকে হত্যার অভিযোগে শিশির সাংমা (৫০) নামের  আরেক নিরাপক্তাকর্মীকে আটক করেছে শিল্পপুলিশ। আটককৃত ওই নিরাপত্তা রক্ষী নেত্রকোনার দূর্গাপুর উপজেলার নয়াপুর গ্রামের মৃত কায়ত্ব চিচাং এর পুত্র বলে জানা যায়।
শিল্পপুলিশ জানায়, ভালুকা রানা মটরস কারখানার দুই নিরাপত্তা রক্ষী মাসুদ ও শিশিরের মধ্যে বেশ কিছু দিন যাবত মনোমালিন্য হয়ে আসছিল, সেই সুত্র ধরেই ২২ সেপ্টেম্বর মধ্যরাতে চোখে টর্চলাইটের আলো লাগাকে কেন্দ্র করে দুজনের মধ্যে মারা-মারি শুরু হয়, এক পর্যায়ে মাসুদকে গুরুতর আহতাবস্তায় অন্যান্য সহকর্মীরা উদ্ধার করে ভিতরে নিয়ে গেলে সেখানে তার মৃত্যু হয়। মাসুদ মারা যাওয়ার খবর পেয়ে পালানোর সময়  শিল্পপুলিশ তাকে আটক করে, মাসুদের মৃতদেহ উদ্ধার করে ভালুকা মডেল থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে । নিহত মাসুদ (৩৫)  কেন্দুয়ার গন্ডা গ্রামের সাদে আব্বাস মীর এর পুত্র বলে জানাযায়।
পুলিশ ও স্থানীয়দের ধারনা পুর্ব আক্রোশের জের ধরেই মাসুদকে হত্যা করা হতে পারে, তবে লাশ ও আটক ব্যক্তি বুঝে পাওয়ার পর ভালুকা মডেল থানা পুলিশ  এই হত্যার অভিযোগের সত্যতা  ও রহস্য উ˜্ঘাটনে  তৎপরতা শুরু করেছে ।  
এ ব্যাপারে ভালুকা মডেল থানার অফিসার  ইনচার্জ মাহমুদুল ইসলাম এর সাথে মুঠো ফোনে কথা হলে তিনি জানান, গেল রাতে শিল্পপুলিশের কাছ থেকে নিরাপত্তা রক্ষী মাসুদ এর  মৃত দেহটি  গ্রহন করার কথা নিশ্চিত করেন। তবে এই ঘটনার সাথে জড়িত অভিযোগে আটক ব্যক্তি কিংবা মামলার বিষয়ে জানতে চেয়ে বার বার ওসি মাহমুদুল ইসলামের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তাকে ফোনে পাওয়া যায়নি।
রানার মটরস লিমিটেডে নিরাপত্তা রক্ষী খুনের ঘটনার বিষয়টি জানার পর ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন শিল্প পুলিশ-৫, ময়মনসিংহ এর পুলিশ সুপার মো: মিজানুর রহমান। তিনি জানান, নিরাপত্তার বিষয়টি বিবেচনায় ওই ঘটনার পর থেকেই কারখানায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে, পূর্ব শত্রুতার জেরে মারামারির ঘটনা থেকেই এই হত্যাকান্ড ঘটতে পারে বলে তিনি ধারনা করছেন। 

Share This Post