নগরের জনগনের নিরাপদ ও স্বাস্থ্যসম্মত খাবার নিশ্চিতে ভ্রাম্যমান বিক্রেতাদের নীতিমালা জরুরী

নগরের জনগনের নিরাপদ ও স্বাস্থ্যসম্মত খাবার নিশ্চিতে ভ্রাম্যমান বিক্রেতাদের নীতিমালা জরুরী

 ঢাকা শহরে ভ্রাম্যমান খাবার বিক্রেতা একটি অত্যন্ত পরিচিত দৃশ্য। স্থায়ী বা অস্থায়ী ভ্রাম্যমান খাবার বিক্রেতা শহরের বিভিন্ন গণপরিসরে তাদের পণ্য সাজিয়ে বসেন। এই হকাররা নগরবাসীর খাদ্য চাহিদা পূরণে উল্লেখযোগ্য ভ‚মিকা রাখেন। বিশেষত নিম্নবিত্ত এবং মধ্যবিত্ত পরিবারগুলো অনেকাংশেই ভ্রাম্যমান খাবার বিক্রেতার উপর নির্ভরশীল। শুধু তাই নয়, ভ্রাম্যমান খাবার বিক্রয় একটি বিশাল জনসংখ্যার আয়ের উৎস। কনজ্যুমার্স এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের তথ্য অনুযায়ী ৯৭,০০০ থেকে ২,০০,০০০ ভ্রাম্যমান খাদ্য বিক্রেতা শাক-সবজি-ফলসহ বিভিন্ন ধরণের তৈরি খাবার বিক্রি করে। কিন্তু এ সকল হকারদের মধ্যে স্বাস্থ্যবিধি ও পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা মেনে চলার ক্ষেত্রে দুর্বলতা লক্ষ্য করা যায়। এ বিষয়ে তাদের কোন প্রশিক্ষণ নেই এবং তদারকির ক্ষেত্রেও দুর্বলতা রয়েছে। বেশিরভাগ হকারদের কোন লাইসেন্স না থাকায় তাদের কোন পরিসংখ্যান নেই ফলে তাদের প্রশিক্ষণের আওতায় নিয়ে আসা ও তদারকি করা অত্যন্ত কঠিন। এ জন্য প্রয়োজন একটি হকার ব্যবস্থাপনা নীতিমালা। যার মাধ্যমে হকারদের ব্যবস্থাপনায় আনার পাশাপাশি সিটি কর্পোরেশনেরও একটি আয়ের উৎস তৈরি করা সম্ভব বলে সভায় বক্তারা অভিমত দেন।
এ বিষয়গুলোকে বিবেচনায় নিয়ে জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থা ‘ঢাকা ফুড সিস্টেম’ প্রকল্পের আওতায় তিনমাস মেয়াদী একটি পাইলট প্রকল্প গ্রহণ করেছে। এর আওতায় ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের ৫ নং ওয়ার্ডে ১০০ জন ফুড ভেন্ডরের একটি ডাটাবেস তৈরি করা হবে এবং তাদের স্বাস্থ্যবিধি-খাদ্যের পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখা বিষয়ে প্রশিক্ষণ প্রদান করা হবে। এটি ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন এবং জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থা কর্তৃক যৌথভাবে গৃহীত একটি উদ্যোগ এবং ওয়ার্ক ফর এ বেটার বাংলাদেশ ট্রাস্ট কার্যক্রমটি বাস্তবায়নে সহযোগী সংস্থা হিসেবে কাজ করছে। এ পাইলট প্রকল্পটি সুষ্ঠু ও সফলভাবে বাস্তবায়নের জন্য আজ ২৩ আগস্ট ২০২১ সকাল ১১.০০টায় স্ট্রীট ফুড ভেন্ডিং বিষয়ে একটি ভার্চুয়াল আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ব্রিগ্রেডিয়ার জেনারেল মো জোবায়দুর রহমান।সভায় মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ওয়ার্ক ফর এ বেটার বাংলাদেশ ট্রাস্ট এর প্রকল্প কর্মকর্তা নাঈমা আকতার। তিনি বলেন, আমাদের একটি হকার ব্যবস্থাপনা নীতিমালা গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করা প্রয়োজন। এর মাধ্যমে ভ্রাম্যমান খাবার বিক্রেতাদের লাইসেন্সিং, ডাটাবেস তৈরি, তদারকি, হকারদের দায়িত্ব ও কর্তব্য নিরূপণ ইত্যাদি সম্ভব হবে। ভ্রামমান খাবার বিক্রেতাদের লাইসেন্স দেয়া, নবায়ন ইত্যাদির মাধ্যমে সিটি কর্পোরেশনের একটি আয়ের বড় উৎস তৈরি করা সম্ভব। পাশাপাশি সিটি কর্পোরেশন ছাড়া যে সকল সংশ্লিস্ট কর্তৃপক্ষ রয়েছে যেমন পুলিশ, শ্রম মন্ত্রণালয়, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় তাদের মধ্যেও সমন্বয় নিশ্চিত করা প্রয়োজন।আলোচনা সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থার ঢাকা ফুড সিস্টেম  চীফ টেকনিক্যাল অফিসার জন টেইলর। ঢাকা শহরে ভ্রাম্যমান খাদ্য বিক্রেতাদের প্রয়োজনীয়তার উপর গুরুত্ব দিয়ে বলেন, নগরবাসী বিশেষত যারা দরিদ্র তারা অনেকেই ভ্রাম্যমান খাদ্য বিক্রেতাদের উপর তাদের খাদ্য চাহিদা পূরণের জন্য নির্ভরশীল। ভ্রাম্যমান খাদ্য বিক্রেতাদের স্বাস্থ্যবিধি বিষয়ক প্রশিক্ষণ প্রদানের মাধ্যমে নগরবাসীর জন্য নিরাপদ খাদ্য যোগান নিশ্চিত করা সম্ভব।সভার প্রধান অতিথি ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ব্রিগ্রেডিয়ার জেনারেল মো জোবায়দুর রহমান বলেন, আমাদের শুধুমাত্র আলোচনার মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকলে চলবে না বরং ভ্রাম্যমাণ খাদ্য বিক্রেতাদের একটি ব্যবস্থাপনার আওতায় নিয়ে আসার জন্য মাঠ- পর্যায়ে উদ্যোগ গ্রহণ করতে হবে। সিটি কর্পোরেশন যেহেতু এক্ষেত্রে একটি মুখ্য অংশীদার কাজেই আমাদের ভ‚মিকা বেশি গুরুত্বপূর্ণ। আমরা ইতোমধ্যে তাদের কিভাবে লাইসেন্সিং এর আওতায় আনা যায় সে বিষয়ে আলোচনা শুরু করেছি। পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার বিষয়ে সচেতনতার কোন বিকল্প নেই। এজন্য সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে।ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নগর পরিকল্পনাবিদ জনাব মাকসুদ হাশেম বলেন, ভ্রাম্যমাণ খাদ্য বিক্রয় খাদ্য চাহিদা, কর্মসংস্থানের পাশাপাশি সামাজিকীকরণের ক্ষেত্রেও একটি ভ‚মিকা আছে। তারা শহরের গণপরিসরগুলো ব্যবহার করছেন। নগরব্যাপী একটি গণপরিসর ব্যবস্থাপনার একটি পরিকল্পনা গ্রহণ করা হলে তাদের ব্যবস্থাপনার আওতায় আনা সহজ হবে।বাংলাদেশ খাদ্য নিরাপত্তা কর্তৃপক্ষের সদস্য প্রফেসর ড. আবদুল আলীম বলেন, এই পাইলট প্রকল্পের মাধ্যমে একটি ডাটাবেস পাওয়া যাবে। তাদের একটি নির্দিষ্ট জায়গায় বসার ব্যবস্থা করা যেতে পারে। সিটি কর্পোরেশন থেকে যদি ভ্রাম্যমাণ খাদ্য বিক্রেতাদের রেজিস্ট্রেশনের মাধ্যমে একটি কার্ডের ব্যবস্থা করে দেয়া হয় তাহলে সিটি কর্পোরেশনের আয়ের উৎস হবে পাশাপাশি ভ্রাম্যমাণ খাদ্য বিক্রেতারাও চাঁদাবাজির শিকার হবে না।আলোচনা সভার সভাপতি ওয়ার্ক ফর এ বেটার বাংলাদেশ ট্রাস্ট এর পরিচালক গাউস পিয়ারী বলেন, প্রতি বছর আমাদের শহরে ভ্রাম্যমাণ খাদ্য বিক্রেতার সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে। আমাদের শহরে কত সংখ্যক ভেন্ডরের স্থান সংকুলান সম্ভব তার একটি পরিকল্পনা প্রয়োজন। পাশাপাশি তাদের একটি ডাটাবেস তৈরি আবশ্যক যাতে তাদের সহজেই প্রশিক্ষণ ও তদারকির আওতায় আনা সম্ভব হয়। ভ্রাম্যমাণ খাদ্য বিক্রেতাগণ আমাদের নগরবাসীর খাদ্য চাহিদা পূরণে ভ‚মিকা রাখছেন। পাশাপাশি এটি একটি বিশাল জনসংখ্যার আয়ের উৎস। ফলে উচ্ছেদ নয় তাদের ব্যবস্থাপনার আওতায় নিয়ে আসা প্রয়োজন।ওয়ার্ক ফর এ বেটার বাংলাদেশ ট্রাস্ট এর সিনিয়র প্রকল্প কর্মকর্তা জিয়াউর রহমানের সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় আরো বক্তব্য রাখেন ইউএনডিপি’র লাইভলিহুডস ইমপ্রæভমেন্ট অফ আরবান পুওর কমিউনিটিস (ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন) এর সোশিও-ইকোনমিক এন্ড নিউট্রিশন এক্সপার্ট জোহরা খানম, বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব প্ল্যানার্সের সাধারণ সম্পাদক আদিল মোহাম্মদ খান, এলাইভ এন্ড থ্রাইভ এর সিনিয়র এডভাইজর ড. জেবা মাহমুদ, মমতা পল্লী উন্নয়ন সংস্থা (এমপিইউএস) এর নির্বাহী পরিচালক মোঃ ইয়াকুব আলী, সিয়াম- এর নির্বাহী পরিচালক মোঃ মাসুম বিল্লাহসহ আরো অনেকে।

Share This Post