গৌরবের ২৫ বছরে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতি

গৌরবের ২৫ বছরে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতি

 ১৯৯৬ সালের ৬ ডিসেম্বর ১০ জন সদস্য নিয়ে যাত্রা শুরু করে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতি (চবিসাস)। হাঁটি হাঁটি পা পা করে চবিসাসের আজ পূর্ণ হলো ২৫ বছর।
দীর্ঘ ৩০ বছর চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (চাকসু) নির্বাচন থাকায় অকার্যকর চাকসুর বিকল্প হিসেবে ছাত্রদের অধিকার আদায়ে প্রত্যক্ষভাবে কাজ করছে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতি। শুধু তাই নয়, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারীদের অধিকার আদায়ের ক্ষেত্রেও কলম হাতে সোচ্চার চবিসাসের সদস্যরা।এভাবেই অনেক কণ্টকাকীর্ণ পথ পাড়ি দিয়ে ২৫ পেরিয়ে আজ ২৬ বছরে পা দিয়েছে চবিসাস। দীর্ঘ এ যাত্রা যেমন গৌরবের, তেমনি ছিল কঠিন। কিছু সাহসী সাংবাদিকের হাত ধরে গোড়াপত্তন হয়েছিল এ সংগঠনের। বিভিন্ন সময় হুমকি-ষড়যন্ত্র উপেক্ষা করে এগিয়েছে চবিসাস।  
চবিসাসের সাংবাদিকদের কলমে উঠে এসেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন সমস্যা, সম্ভাবনা, দুর্নীতি ও অনিয়ম। মামলা, হামলায় দমে যায়নি চবিসাস।
বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের সাংবাদিকতায় অপরাধ, রাজনীতি, পরিবেশ, বাণিজ্য, গবেষণা, আইন, উদ্ভাবনসহ জাতীয় প্রেক্ষাপটের প্রায় সব বিষয়ে ক্যাম্পাস সাংবাদিকদের প্রশিক্ষণ হয় হাতে-কলমে। হুমকি, চাপ কিংবা আনন্দ- সব অভিজ্ঞতাই হয় এখানে। বলা যায় ছাত্রজীবনে অন্য যেকোনো পেশায় গিয়ে এমন অভিজ্ঞতা সম্ভব নয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের এ ছোট ছোট হাতগুলোই গড়ে তোলে বিচিত্র সব স্বপ্ন। যে স্বপ্নের ডানায় ভর করে চলে এ বিশ্ববিদ্যালয়ের ২৮ হাজার শিক্ষার্থী।
২৫ বছর ধরে ব্যালট-ভোটের মাধ্যমে নেতৃত্ব নির্ধারণ করে আসছে চবিসাস। প্রতিবছর গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে সমিতির নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। সমিতির সংবিধান অনুযায়ী এক বছর আগে সমিতির সদস্য পদ লাভ করেছেন এমন সদস্যই নির্বাচনে অংশ নিতে পারেন।
১৯৯৭-৯৮ সেশনে সমিতির প্রতিষ্ঠাকালীন সভাপতি ছিলেন আহমেদ করিম এবং সাধারণ সম্পাদক আবদুল মালেক। বর্তমানে সমিতির ২২তম কমিটি দায়িত্ব পালন করছে। চবিসাসের বর্তমান সভাপতি ইমরান হোসাইন ও সাধারণ সম্পাদক মুনাওয়ার রিয়াজ মুন্না। ৭ সদস্যের কার্যনির্বাহী পরিষদ রয়েছে এ সংগঠনের। সমিতির বর্তমান সদস্য ৩১ জন।  
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতির প্রধান উপদেষ্টা হিসেবে পদাধিকারবলে দায়িত্বে থাকেন চবি উপাচার্য। বর্তমান প্রধান উপদেষ্টা চবি উপাচার্য অধ্যাপক ড. শিরীণ আখতার। এছাড়াও পদাধিকারবলে চবিসাসের উপদেষ্টা হিসেবে রয়েছেন- চবি উপ-উপাচার্য, রেজিস্ট্রার, প্রক্টর, শিক্ষক সমিতির সভাপতি, যোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সভাপতি, তথ্য শাখার ডেপুটি রেজিস্ট্রার, সমিতির সাবেক সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকদের মধ্য থেকে মনোনীত দুই জন সদস্য।  
বর্তমানে দেশের টেলিভিশন চ্যানেল, সংবাদপত্র, অনলাইন পোর্টাল, রেডিওসহ দেশের প্রতিষ্ঠিত গণমাধ্যমে রয়েছে এ সমিতির সদস্যরা। কেউ কাজ করছেন ব্যুরো প্রধান হিসেবে, কেউ আছেন নিউজ এডিটর আবার কেউ জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক কিংবা নিজস্ব প্রতিবেদক হিসেবে কাজ করছেন বিভিন্ন গণমাধ্যমে।  
প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে নিজের অনুভূতি জানিয়ে চবিসাসের সাধারণ সম্পাদক মুনাওয়ার রিয়াজ মুন্না বলেন, সবার প্রতি রইলো প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর শুভেচ্ছা। বহু পথ পেরিয়ে আজ ২৬ বছরে পা-দিলো চবিসাস। আজকের এ দিনে শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করছি আমাদের অগ্রজ কলমসৈনিকদের। যাদের সাহসী পদক্ষেপে চবিসাস এ জায়গায় পৌঁছেছে। প্রতিষ্ঠাকাল থেকে মহান স্বাধীনতার চেতনা ও প্রগতিশীল ভাবধারা নিয়ে বস্তুনিষ্ঠ সংবাদচর্চা, সাংবাদিকদের সুরক্ষা ও অধিকার নিশ্চিতকরণে কাজ করে আসছে চবিসাস। সমিতির ভবিষ্যৎ আরও মসৃণ ও সুন্দর হোক এটাই প্রত্যাশা।
চবিসাসের সভাপতি ইমরান হোসাইন বলেন, সমিতির সাবেক বর্তমান সব সদস্যের অংশগ্রহণে আগামী ১৮ জানুয়ারি আমরা রজতজয়ন্তী উৎসব আয়োজনের পরিকল্পনা নিয়েছি। এ উৎসবকে স্মরণীয় করে রাখতে আমাদের বিভিন্ন পরিকল্পনা রয়েছে। আশাকরি সংশ্লিষ্টদের সহযোগিতায় একটি জমজমাট উৎসব আয়োজন করতে পারব।  

Share This Post