কালীগঞ্জ -যশোর , কালীগঞ্জ – কোটচাঁদপুর মহাসড়ক চলাচলের অনুপযোগী

কালীগঞ্জ -যশোর , কালীগঞ্জ – কোটচাঁদপুর মহাসড়ক চলাচলের অনুপযোগী

নিয়ামত উল্লাহ (কালীগঞ্জ, ঝিনাইদহ) :
ঝিনাইদহ –- কালীগঞ্জ , কালীগঞ্জ – কোটচাঁদপুর মহাসড়কের অধিকাংশ স্থানে বড় বড় গর্ত ও খানাখন্দক সৃষ্টি হওয়ায় সড়কে চলাচল অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। এতে প্রতিনিয়ত ঘটছে দূর্ঘটনা। দক্ষিন – পশ্চিমাঞ্চলের সীমান্তবতী গুরুত্ব পূর্ন এ সড়ক দিয়ে মোংলা নৌবন্দর ও বেনাপোল স্থল বন্দরের অধিকাংশ মালামাল দেশের বিভিন্ন স্থানে আনা নেওয়া করা হয়। গুরুত্ব পূর্ন এ সড়ক এখন চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে।
সরেজমিনে দেখা গেছে , কালীগঞ্জ – যশোর মহাসড়কের কালীগঞ্জ উপজেলার নীমতলা বাসষ্ট্যান্ড কেয়াবাগান, পিরোজপুর, বারোবাজার, কালীগঞ্জ শহরের মেইন বাসষ্ট্যান্ড, সহ সড়কের বিভিন্ন স্থানে সৃষ্টি হয়েছে বড় বড় গর্ত। অপর দিকে কালীগঞ্জ – কোটচাঁদপুর সড়কের কালীগঞ্জ বাসষ্ট্যান্ড থেকে গুলশান মোড় পর্যন্ত প্রায় দেড় কিলোমিটার সড়ক চলাচলের একেবারে অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। প্রায় প্রতিদিই ঘটছে দূর্ঘটনা। এসব স্থানে বড় বড় গর্তের ভিতর পড়ে যানবাহন। ভাঙ্গা চুরা রাস্তা দিয়ে চলাচলে দূর্ভোগের স্বীকার হচ্ছে সাধারন মানুষ। সড়ক বিভাগের পক্ষ থেকে মাঝে মধ্যে খানা খন্দকে কিছু ইটের খোয়া দিয়ে মেরামত করলেও কয়েক দিন পর আবার আগের অবস্থায় ফিরে আসে।
সড়কে চলাচলকারী চাঁচড়া গ্রামের তবিবার রহমান নামের এক ট্রাক চালক জানান, রাস্তা খুব খারাপ।্ রাস্তায় গাড়ি চালানো খুব কষ্টকর। রাস্তায় বড় বড় গর্ত হওয়ার কারনে অনেক সময় গাড়ী ভেঙ্গেচুরে পড়ে থাকে। যে কারনে রাস্তায় যানজট সৃষ্টি হয়। ভাঙ্গা চুরা রাস্তা দিয়ে গাড়ী চালাতে আমাদের খুব দূভোগ পোহাতে হচ্ছে।
এ ব্যাপারে ঝিনাইদহ সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মোহাম্মদ আনোয়ার পারভেজ জানান, ঝিনাইদহ -– কুষ্টিযা , ঝিনাইদহ -– যশোর ও কালীগঞ্জ – কোটচাঁদপুর সড়ক সংস্কারের জন্য মন্ত্রনালয়ে কাগজ পত্র পাঠানো হয়েছে। ইতিমধ্যে সংস্কারের জন্য অনুমোদন পেয়েছে। আগামী কয়েক সপ্তাহের মধ্যে দরপত্র আহবান করে দ্রুত সংস্কারের কাজ করা হবে।

Share This Post