কয়রায় চেয়ারম্যানের উদ্যোগে কবরস্থানের ব্যবস্থা

কয়রায় চেয়ারম্যানের উদ্যোগে কবরস্থানের ব্যবস্থা


মিনহাজ দিপু (কয়রা , খুলনা) :

খুলনার কয়রা উপজেলার সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এস,এম বাহারুল ইসলামের উদ্যোগে কয়রা সদরের মধুর মোড় সংলগ্ন  মডেল মসজিদের নির্ধারিত স্থানের  পাশে   গণ কবরস্থান করার উদ্যোগ নিয়েছেন।কবরস্থান করার জন্য  ইউপি চেয়ারম্যানের পিতা এসএম ফজর আলী সানা  জমি দান করেছন। গণকবরের নির্মাণের ফলে উপজেলায় ভূমিহীন, অসহায়, বে-ওয়ারিশ সহ সুবিধা বঞ্চিত মরদেহ সৎকারের জন্য একটি সুনির্দিষ্ট স্থান তৈরি হলো।

বিগত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে এলাকাবাসীকে দেওয়া প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী ইউপি চেয়ারম্যান এস,এম বাহারুল ইসলামের  নিজস্ব অর্থয়ানে গণকবর স্থানটি বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, সদরের মডেল মসজিদের নির্ধারিত স্থান  সংলগ্ন এলাকায় এক বিঘা জমিতে কবরস্থান তৈরির জন্য কাজ চলছে।কিছুদিনের মধ্যে বালি ভরাট ও সীমানা প্রাচীর নিমার্ণ শেষ হবে।

কবরস্থান নির্মাণের জন্য এলাকাবাসীসহ সর্ব মহলে প্রশংসায় ভাসছেন তরুণ আওয়ামী লীগের এ নেতা।

এ ব্যাপারে কয়রা উপজেলা উন্নয়ন সমন্বয় কমিটির সভাপতি মো.খায়রুল আলম বলেন,আধুনিক পরিকল্পিত উপজেলার জন্য সদরে একটি কবরস্থানের প্রয়োজন ছিল।আমাদের দীর্ঘদিনের দাবি ছিল উপজেলা সদরে একটি কবরস্থানের। কয়রা সদরের ইউপি চেয়ারম্যান কবরস্থান তৈরির উদ্যোগ নেওয়ায় আমাদের দাবি পূরণ হলো।

কয়রা শেখ রাসেল প্রতিবন্ধী বিদ্যালয়ের শিক্ষক মো.গোলাম মোস্তফা বলেন,কয়রার মতো নদী ভাঙন এলকায় সাধারণ গরিব ও অসহায় মানুষের জন্য  কবরস্থান তৈরী সাধারণ মানুষের মুখে হাসি ফুটাবে।নদী ভাঙ্গনে যাদের শেষ সম্বলটুকু হারিয়েছে তাদের কথা বিবেচনা করে কয়রা সদরের চেয়ারম্যানের   এমন মানবিক কাজ সত্যিই প্রশংসনীয়। এলাকার ঘন বসতির কারণে মানুষ মারা গেলে তার লাশকে অনিচ্ছা শর্তেও দাফনের জায়গার অভাবে বিভিন্ন গ্রামে নিয়ে দাফন করা হতো। কয়রার কোন ধনাঢ্য ব্যক্তি এ বিষয়ে এগিয়ে না আসলেও কয়রা সদরের বর্তমান চেয়ারম্যান তাহা পূরণ করতে সক্ষম হয়েছে।

এ বিষয়ে  ইউপি চেয়ারম্যান  এস,এম বাহারুল ইসলাম বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শের সৈনিক হিসেবে জননেত্রী শেখ হাসিনার বিশ্বস্ত কর্মী হয়ে মানুষের কল্যাণে কাজ করে যাচ্ছি। জীবনের বাকি সময়টুতো মানুষের জন্য কাজ করতে চাই। এরই অংশ হিসেবে আত্মার প্রশান্তি থেকেই উপজেলা সদরে কবরস্থান নির্মাণের উদ্যোগ নিয়েছি।উপজেলায় মৃত ব্যক্তি দাফন নিয়ে এলাকাবাসী অনেক ভোগান্তির মধ্যে ছিল। আমি আমার নির্বাচনী ইশতেহারে দেওয়া প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী আমার পিতার সহযোগীতা পূরণ করতে পেরেছি।

স্থানীয় সংসদ মো.আক্তারুজ্জামান বাবু বলেন, আমার নির্বাচনী এলাকার কয়রা খুবই ঘন বসতি হওয়ার কারণে মৃত ব্যক্তির লাশ দাফন নিয়ে খুবই ভোগান্তি পেতে হতো। কিন্তু সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এসএম বাহারুল ইসলাম ও তার পিতার  যৌথ অর্থায়নে মহৎ উদ্যোগে আজ তা নিরসন হলো। আমি আমার জায়গা থেকে এমন  মহৎ কাজের জন্য সর্বোচ্চ সহযোগিতা করবো।

Share This Post